কিভাবে ইউটিউবিং শুরু করবেন স্টেপ বাই স্টেপ সেরা গাইড

1
220

অনেকেই আছেন যারা ইউটিউবিং শুরু করতে চান। কিন্তু কিভাবে ইউটিউবিং শুরু করবেন তার সঠিক গাইডলাইন আপনি হয়তো পাচ্ছেন না। এই আর্টিকেলটি কিভাবে ইউটিউবিং শুরু করবেন এই নিয়ে লেখা।

ইউটিউব!! গুগলের জনপ্রিয় একটি ভিডিও শেয়ারিং প্লাটফর্ম। প্রতি মিনিটে এই প্লাটফর্মটিতে ৫০০ ঘন্টারও বেশি ভিডিও আপলোড হচ্ছে। শুধু যে আপলোডই হচ্ছে তা কিন্তু নয়। প্রতিদিন ১ বিলিয়ন ঘন্টারও বেশী ভিডিও দেখছে ইউটিউবের ব্যবহারকারীরা। অনেক ক্যাটেগরির ভিডিও আপনি ইউটিউবে পাবেন যেখান থেকে অনেক কিছু জানতে ও শিখতে পারবেন। আপনি চাইলে ইউটিবে ভিডিও আপলোড করে অন্যকে জানাতে বা শেখাতে পারবেন।

ইউটিউবিং কি?

ইউটিউবিং কি সেটা জানার আগে আমাদের জানা উচিত ইউটিউব কি!! কিন্তু, আপনি ইউটিউব কি সেটা সম্পর্কে ভালোভাবে জানেন। তাছাড়া পোস্টের শুরুতেই ইউটিউব সম্পর্কে আমি কিছু কথা বলেছি। আর, ইউটিউবিং নিয়ে আপনার মোটামুটি ধারণা নিশ্চয়ই আছে বলে আমি মনে করি। ইউটিউবিং এর সংজ্ঞা আমারা এভাবে দিতে পারি, ইউটিউবে ভিডিও আপলোডের মাধ্যমে আয় করার উপায়ই হলো ইউটিউবিং। আর, এভাবেও বলতে পারেন, ইউটিউবে নিয়মিত ভিডিও আপলোড করাই ইউটিউবিং।

ইউটিউবিং এর সংজ্ঞা যেভাবে দেওয়া হোক না কেন ভিডিও আপলোডের বিষয়টা কিন্ত ঠিকই থাকছে।

আমাদের মধ্যে অনেকেই আছে যারা ইউটিউবিং শুরু করতে চাচ্ছে। ইউটিউবিং শুরু করে যে অর্থ উপার্জন করা যায় তা কিন্তু নয়। আপনি যে কন্টেন্ট নিয়ে ইউটিউবিং শুরু করবেন সে কন্টেন্ট নিয়ে অনেক কিছু জানতে পারবে। যা অবশ্যই একটা ভালো দিক। তাছাড়া অনেক ফ্যান ফলোয়ারও পাবেন। যাই হোক না কেন!!  এখন এসব কথা বাদ দিয়ে আর্টিকেটির মূল বিষয়ে আসা যাক।

কিভাবে ইউটিউবিং শুরু করবেন?

আপনি যদি ইউটিউবিং শুরু করে সফল হতে চান তাহলে এই আর্টিকেলটিতে বলা কথাগুলোন মনোযোগ সহকারে পড়বেন এবং কাজে লাগবেন। এগুলো শুধু আমার কথা বড় বড় ইউটিউবারাও আপনাকে এই কথাগুলোই বলবে। আর্টিকেলটি এমনি এমনি লেখা হয় নি। আর্টিকেলটির অনেক কথা রিসোর্স করে লেখা হয়েছে।

নিশ নির্বাচন

যেকোনো কিছু শুরু করার আগে নিশ নির্বাচন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি কাজ। আপনি যে কাজটি করতে যান না কেন আপনাকে নিশ সিলেক্ট করে নিতে হবে। এটিকে আপনি ক্যাটেগরি হিসাবে বিবেচনা করতে পারেন। আপনাকে আমি সহজভাবে বোঝাচ্ছি। যদি আপনি ইউটিউবিং শুরু করেন তখন আপনাকে কোন না কোন টপিক বেছে নিতে হবে। সেটা গেমিং হতে পারে, রিভিউ, টেকনোলোজি, ইলেকট্রনিক ইত্যাদি হতে পারে। এই সবগুলো থেকে একটি বেছে নেওয়াকে নিশ নির্বাচন বলতে পারেন।

আপনার যে বিষয়ে আগ্রহ আছে এবং আপনি যে বিষয়ে পারদর্শী সেই নিশটি বেছে নেওয়া বুদ্ধিমানের কাজ হবে। একটা দুইটা নিশ নয়!! হাজার হাজার ইউনিক নিশ আছে যেগুলোর একটি বেছে নিয়ে আপনি আপনার ইউটিউবে যাত্রা শুরু করতে পারেন। আর যদি সম্ভব হয় তবে ইউনিক একটা নিশ বেচে নিতে পারেন। অথবা, যে নিশে কম্পিটিটর কম কিন্তু চাহিদা বেশী সেই নিশটিও বেছে নিতে পারেন।

আমি আপনাকে একটা উদাহরণ দিচ্ছি। রোস্টিং বা গেমিং কন্টেন্ট কিন্ত সাম্প্রতিক সময়ে জনপ্রিয় দুইটি কন্টেন্ট/ নিশ। সম্ভবত ২০১৬-২০১৭ সাল থেকে এই রোস্টিং কনটেন্ট বাংলাদেশ অনেক জনপ্রিয়তা পায়। আর গেমিং কনটেন্ট ২০১৭ সালের পর থেকে। আপনি কখনো কি ভেবে দেখেছিল গেম এভাবে গেম খেলে ইউটিউবিং করা যায়? এরকম আরো অনেক নিশ আছে যেগুলোর কদর আছে। আপনি যদি এমন ইউনিক টাইপের কনটেন্টে/ নিশ খুজে নিয়ে ইউটিউবিং শুরু করেন তাহলে সফল হওয়ার সম্ভাবনা বেশী থাকবে। তবে আপনি চাইলে সাধারণ নিশ গুলো নিয়েও কাজ করতে পারেন। যেমনঃ ইলেক্ট্রনিক, টেকনোলজি, রিভিউ ইত্যাদি। এসব নিশে কম্পিটিটর অনেক বেশী। তাই আপনাকে কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে টিকে থাকতে হবে।

চ্যানেল তৈরি ও নাম নির্বাচন

নিশ নির্বাচনের পর ইউটিউবিং শুরু করার জন্য ইউটিউবে সুন্দর ও ইউনিক নাম দিয়ে চ্যানেল তৈরি করা অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি কাজ। ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করা বড় কোন কাজ না। কয়েক মিনিটের মধ্যে আপনি একটি ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করে নিতে পারবেন।

যদি আপনি না জানেন কিভাবে একটি ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করতে হয় তাহলে এই প্রশ্নের উত্তর আমার কাছ থেকে না শুনে ইউটিউবকে জিজ্ঞাসা করুন। ইউটিউব আপনাকে উত্তর দিয়ে দিবে।

তবে ইউটিউব চ্যানেল খোলার জন্য আপনাকে আপনার চ্যানেলের জন্য নাম নির্বাচন করতে হবে। চ্যানেলের নাম নির্বাচনের ক্ষেত্রে ইউনিক একটি নাম আপনার চ্যানেলের জন্য নির্বাচন করুন। আর চেস্টা করুন নামটি আপনার নিশ সম্পর্কিত রাখার। যাতে নামটি শুনলে যেন বোঝা যায় আপনার চ্যানেলে কি ধরনের ভিডিও থাকতে পারে।

চ্যানেল তৈরি করার পর আপনি আপনার চ্যানেলের লোগো, ব্যানার আপলোড, ডিসক্রিপশন দিয়ে আপনার চ্যানেলকে সাজিয়ে নিন।

নিয়মিত ভিডিও আপলোড করুন

আপনার ইউটিউবিংকে চলমান রাখার জন্য আপনাকে আপনার চ্যানেলে নিয়মিত ভিডিও আপলোড করতে হবে। আর, শুধু ভিডিও আপলোড করলেই হবে না। কোয়ালিটি সম্পন্ন ভিডিও আপলোড করার চেস্টা করুন। যাতে আপনার চ্যানেলের ভিডিও ভিউয়ারা দেখে। নতুন নতুন আপনাকে অনেক পরিশ্রম করতে হবে আপনার চ্যানেলকে দাড় করাতে। তবে আপনি যদি কনটেন্ট ও কোয়ালিটি সম্পন্ন ভিডিও ভিউয়ারদের উপহার দিতে পারেন তাহলে কাজটি আপনার জন্য সহজ হবে। তবে ইউটিউবে  ভিডিও আপলোড দেওয়া আগে কিছু বিষয় খেয়াল রাখবে। যেমনঃ

  1. ভিডিও কোয়ালিটি সর্বনিম্ন ৭২০ পিক্সেল রাখবে। আর সবসময় চেস্টা করবেন ১০৮০ পিক্সেলের ভিডিও আপলোড করার জন্য।
  2. কনটেন্ট রিসার্চ করে ভালো মানের কনটেন্ট নিয়ে ভিডিও বানান। অনেক নিশে রিসার্চ করা প্রয়োজন পড়ে না সেক্ষেতে অন্যান্য বিষয় গুলো মেনে চলুন।
  3. যদি ভিডিও তে আপনি আপনার ভয়েস যুক্ত করেন তাহলে ভয়েসের কোয়ালিটি ঠিক রাখার জন্য। আর চেস্ট করবেন পরিমার্জিত ভাষায় কথা বলার জন্য।
  4. ভিডিও এর ইডিটিং সুন্দর রাখবে। বেশী এডিট করার প্রয়োজন নেই। প্রয়োজনীয় ইডিট করুন।
  5. ১০ মিনিটের বেশি সময়ের বেশী সময়ের ভিডিও না করা ভালো। ভিডিও এর মিনিমাম ডিউরেসন ৫ মিনিট রাখুন আর ম্যাক্সিমাম ডিউরেসন ১৫ রাখুন। তবে ক্ষেত্র বিশেষে ২০ মিনিটের ভিডিও আপলোড করতে পারেন।
  6. কনটেন্টের বাহিরের বিষয়ে কথা বলা পরিহার করুন। সবসময় কনটেন্টে ফোকাস রাখুন।
  7. ভিডিওতে কপিরাইট কিছু ব্যবহার করবেন না।
  8. ইন্ট্রো এর ডিউরেসন কম রাখুন। ১০ সেকেন্ড রাখার চেষ্টা করবেন। আর ভিডিও শুরুর আগে ভিডিও এর হাইলাইট ফিচার দেখাবেন। এরপর ইন্ট্রো তারপর ভিডিও।
  9. সুন্দর ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক ব্যবহার করুন।
  10. সবশেষ, ভিডিওটি নিজে চেক করে নিন। চেক করে নেওয়ার পর ঠিকঠাক লাগলে ভিডিওটি আপনি আপনার চ্যানেলে আপলোড করুন।
ভিডিও ও চ্যানেলের প্রমোশন করুন

যদিও এই পয়েন্টটা এই ইউটিউবিং শুরু করার মধ্যে সরাসরি ভাবে প্রয়োজন পড়ে না। কিন্তু, প্রোমোশন ছাড়া শুরুতে আপনি আপনার ইউটিউব চ্যানেলের ভিডিওতে ভিউ পাবেন না। ফলে ইউটিউবিং শুরু করতে না করতে শেষ হয়ে যাবে।

তাই আপনি আপনার চ্যানেলের ভিডিও আপনার বন্ধু বান্ধবদের সাথে শেয়ার করুন। এছাড়া সোসাল মিডিয়ার বিভিন্ন জায়গায় শেয়া করুন। এতে করে প্রথম অবস্থায় অনেক ভালো পরিমাণ ভিউস পেতে পারেন।

শেষ কথা

ইউটিউবে আপনি যদি টিকে থাকতে চান তাহলে আপনাকে চেষ্টা, পরিশ্রম করতে হবে। চেষ্টা ও পরিশ্রম ছাড়া কোনভাবে সফলতা অর্জন করা সম্ভব নয়। আর প্রথম অবস্থায় আপনি আপনার সাবস্ক্রাইবার ও ভিউয়ারদের সাথে বেশী বেশী কানেক্ট থাকার চেস্টা করুন। তাদের কমেন্টের রিপ্লে দিয়ে তাদের সাহায্য করুন। আর তারা যে নিয়ে ভিডিও চায় সেই টপিক নিয়ে ভিডিও পাবলিশ করার চেস্টা করুন।

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here